11:23 am - Tuesday February 20, 2018

বাংলাদেশের ইতিহাসে যা হয়নি সেটাই টি-টুয়েন্টিতে হতে যাচ্ছে

বাংলাদেশের ইতিহাসে যা হয়নি সেটাই এবার হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার টি-টুয়েন্টি ম্যাচে।  সেই এনামুল হক মনি-মোহাম্মদ রফিক দিয়ে শুরু।  তারপর এনামুল হক জুনিয়র, রাজ্জাক, মানজারুল রানা, সাকিব আল হাসান, ইলিয়াস সানি, আরাফাত সানি ও সানজামুল- বাঁহাতি স্পিনারে ছড়াছড়ি।  হোক তা টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট।  বাংলাদেশ দল আর বাঁ-হাতি স্পিন ও বাঁ-স্পিনার যেন এক হয়ে গেছে।  লাল সবুজ জার্সি গায়ে ১১ জনের দল মানেই অন্তত দুজন বাঁ-হাতি স্পিনার।

বাঁ-হাতি ছাড়া বাংলাদেশ দল ভাবাই যায় না।

পণ্ডিত, বোদ্ধা ও বিশেষজ্ঞ হবার দরকার নেই, পাড়ার-গলির কিশোরও জানেন বাংলাদেশ দল মানেই স্পিন নির্ভরতা।  বাঁ-হাতি স্পিনার কেন্দ্রিক স্পিন আক্রমণ।

২০০০ সালে টেস্ট খেলিয়ে দেশ হবার পর গত প্রায় দেড় যুগে বাংলাদেশ বাঁ-হাতি স্পিনার ছাড়া মাঠে নামেনি একবারও।  এবার কি সেই বিরল ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে? আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি শেরে বাংলায় শ্রীলঙ্কার সঙ্গে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে কি কোন বাঁ-হাতি স্পিনার ছাড়াই মাঠে নামতে যাচ্ছে বাংলাদেশ?

সাকিব আল হাসান খেলতে পারলে আর একথা উঠতো না।  কিন্তু এখন উঠছে জোরেশোরে।  কারণ সাকিব সিরিজের বাইরে চলে যাওয়ায় স্কোয়াড বাঁ-হাতি স্পিনার শূন্য হয়ে পড়েছে।  ১৫ জনের দলে অফস্পিনার আছেন দুজন, মেহেদি হাসান ও আফিফ হোসেন ধ্রুব।

এছাড়া মাহমুদউল্লাহও সীমিত ওভারের ফরম্যাটে প্রায় নিয়মিতই বল করেন।  কিন্তু বোলিং লাইন আপে আর কোনো বাঁ-হাতি স্পিনার নেই।  বরং পেসার আছেন এক ঝাঁক- মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, আবু হায়দার রনি, সাইফউদ্দিন ও আবু জায়েদ রাহি।

এদের সঙ্গে জেন্টল মিডিয়াম পেস বোলার হিসেব আরিফুল হকও আছে।  ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রায় নিয়মিত বল করেন আরিফুল।  কাজেই সাকিবের বদলে একজন বাঁ-হাতি স্পিনারকে নতুন করে না নিলে লঙ্কানদের সঙ্গে দুই ম্যাচের সিরিজে বাংলাদেশ যে বাঁ-হাতি স্পিনার ছাড়াই খেলবে।

‘শ্রীলঙ্কার সঙ্গে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাঁ-হাতি স্পিনার শূন্যই থাকবে বাংলাদেশের বোলিং লাইন আপ? দুই ম্যাচে শুধু পেসার আর অফস্পিনার নিয়েই মাঠে নামবে টাইগাররা?’


Filed in: খেলাধুলা