4:10 pm - Monday February 19, 2018

কারাগারে ভেঙ্গে পরেছেন বেগম জিয়া – কেঁদে কেঁদে তিনি যা বললেন

কারাগারে ভেঙ্গে পড়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। তার কারাজীবন দীর্ঘ হচ্ছে এটা বুঝতে পারেন সোমবার। ওই দিনই কারা কর্তৃপক্ষ একে একে তাঁকে চার মামলায় গ্রেপ্তার দেখায়।

বেগম জিয়া বুঝতে পারেন, সহসাই তাঁর মুক্তি পাবার কোনো সম্ভাবনা নেই। এসময়ই প্রথম কেঁদে ফেলেন তিনি। কারা কর্তৃপক্ষকে জিজ্ঞেস করেন, তোমরা আমাকে কতদিন রাখবে? উত্তরে কারা কর্মকর্তা তাকে বলেন ‘এটা তো আমরা জানি না। এটা জানে আদালত।’

এরপর বেগম জিয়া নিজেই বিড় বিড় করে বলেন, ‘ওরা আমাকে মিথ্যা বলেছে। ওরা বলেছিল, দুই-তিনদিনের বেশি আমাকে জেলে থাকতে হবে না। এভাবে বেশি দিন থাকলে আমি বাঁচব না।’ দুই নারী কারারক্ষী তাঁকে সান্তনা দেন।

সোমবার সারাদিন বেগম জিয়া নিকট আত্মীয় এবং আইনজীবীদের জন্য অপেক্ষা করেছেন। কিন্তু সোমবার কেউ তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেনি। এজন্যও মন খারাপ করেছিলেন তিনি। পঞ্চম দিনের মতো জেলে খাবার গ্রহণ না করে ষ্ট্রবেরী, নাশপাতি, আঙ্গুর এবং অন্যান্য ফলমুল এবং জুস খেয়েই কাটান বিএনপি চেয়ারপারসন। এছাড়াও তিনি খেয়েছেন কেক, বিস্কুট, কোয়েকার এর মতো শুকনো খাবার।

লন্ডনে বাংলাদেশ দূতাবাসের হামলায় তারেক জিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে লন্ডন পুলিশ। গত সোমবার লন্ডন সময় বিকেল ৫টায় তারেকের বাসায় গিয়ে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করে। প্রায় এক ঘন্টাব্যাপী জিজ্ঞাসাবাদে কি তথ্য পাওয়া গেছে সে সম্পর্কে লন্ডন পুলিশ কিছু বলেনি। তবে তদন্তকারী একজন কর্মকর্তা বলেছেন, জিজ্ঞাসাবাদ এখনো শেষ হয়নি।

লন্ডন পুলিশের জেরার মুখে তারেক

পুলিশ আবারও আসবে বলে জানিয়েছে। লন্ডন পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে তারেক জিয়ার নির্দেশে যুক্তরাজ্য শাখা বিএনপি ঘটনার জন্য দু:খ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে। যুক্তরাজ্য আইনে এধরনের ক্ষমা প্রার্থনা এবং দু:খ প্রকাশ কে গুরুত্ব দেওয়া হয়। এতে অপরাধীকে ক্ষমা করে দেয়ার গুরুত্ব হ্রাস পায়।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যের লন্ডনে বাংলাদেশি দূতাবাসে হামলা চালায় বিএনপির কর্মী ও সমর্থকরা। তাঁরা সেখানে ব্যাপক ভাঙ্গচুর করে। লন্ডন পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা স্বীকার করে যে তারেকের নির্দেশেই এই ঘটনা ঘটিয়েছে। বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে ঘটনায় দোষীদের বিচার চেয়ে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করা হয়।

ওই ঘটনার পরপর ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায় আসেন। একান্ত বৈঠকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী লন্ডনের হামলার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং দোষীদের বিচার দাবি করেন।


Filed in: রাজনীতি