11:34 am - Tuesday February 20, 2018

বিএনপির সঙ্গে বৈঠক শেষে যা বললো ইইউ

বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছে বাংলাদেশ সফররত ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) একটি প্রতিনিধিদল।বুধবার সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রবেশ করেন ইইউ প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। সন্ধ্যা ৬টা ৫৬ মিনিটে বৈঠক শুরু হয়। প্রায় এক ঘণ্টা বৈঠক শেষে সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিটে গুলশান কার্যালয় ত্যাগ করেন ইইউ সদস্যরা।

 

আগামী সংসদ নির্বাচন সকল দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ দেখতে চায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। বুধবার সন্ধ্যায় গুলশানে ইইউ দূতাবাসে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের (ইপি) প্রতিনিধি দলের নেতা জ্যঁ ল্যামবার্ট। খালেদা জিয়ার সাজার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটি একটি জটিল প্রক্রিয়া। বিচার ব্যবস্থা নিয়ে কিছু বলা আমাদের আওতার মধ্যে পড়ে না।’

জ্যঁ ল্যামবার্ট বলেন, ‘খালেদা জিয়ার পার্টি একটি চ্যালেঞ্জের মুখে। আমরা বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে আলোচনা করেছি। দেখার বিষয়- তারা এটি কিভাবে সামাল দেয়, যাতে সব দল নির্বাচনে অংশ নিতে পারে।’

এসময় তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা সংকট বিশ্বের সবচেয়ে বড় উদ্বাস্তু সংকট। বাংলাদেশ সরকার তাদের আশ্রয় দিয়ে একটি প্রশংসনীয় কাজ করেছে।’

ইপি প্রতিনিধি দল প্রধান বলেন, ‘এতো সংখ্যক শরণার্থীর খাদ্য-বস্ত্র-বাসস্থানের ব্যবস্থা করা একটি জটিল বিষয়। বর্ষা আসন্ন। এখানে দ্বিতীয় বড় সংকটের সৃষ্টি হোক সেটা আমাদের কাম্য নয়।’

তিনি আরও বলেন, রাখাইনে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর অবাধ যাতায়াত নিশ্চিত না করে রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়। মিয়ানমারের দিক থেকে এখনো মানবাধিকার কর্মীদের অবাধ বিচরণে বাধা দেয়া হচ্ছে।

জ্যঁ ল্যামবার্ট বলেন, রোহিঙ্গাদের দীর্ঘ সময় ধরে রাখা সম্ভব নয়। এতে মানবপাচার এবং চরমপন্থা উৎপত্তি হতে পারে। ইইউ এনিয়ে কী করতে পারে তা নিয়ে ভাবতে হবে।

ঢাকাস্থ ইইউ রাষ্ট্রদূত রেনসিয়ে টিয়েরিঙ্ক এবং ইইউ সদস্য ওয়াল্টার মাসুর এসময় উপস্থিত ছিলেন।


Filed in: রাজনীতি