8:53 am - Wednesday December 13, 2017

হঠাৎ আলুর দাম ১ টাকা থেকে দেড় টাকা!

বাজারে ব্যাপক ধস নামায় ৮৪ কেজির এক বস্তা আলু বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। এত কম দামে আলো বিক্রি হলেও পাওয়া যাচ্ছে না ক্রেতাদের। হঠাৎ আলুর দাম ১ টাকা থেকে দেড় টাকা কেজিতে নেমে আসায় হিমাগারে রাখা আলু উত্তোলন করছে না কেউ। এতে বগুড়ার ৩৩ হিমাগারে ১০০ কোটি টাকার লোকসানের আশঙ্কা করছে।

বগুড়ার শিবগঞ্জের দোপাড়া গ্রামে কৃষক আব্দুল আজিজ এই মৌসুমে এক হাজার ৫০০ বস্তা আলু ব্যবসার উদ্দেশে সংরক্ষণ করেন। যার আনুমানিক মূল্য ২২ লাখ ৬৬টি হাজার ৫০০ টাকা। কিন্তু আলু বিক্রি করেছে মাত্র দুই লাখ ৫৬ হাজার টাকা। ওই কৃষকের তহবিল থেকে ২০ লাখ টাকা লাপাত্তা হয়ে গেছে। এই রকম হাজার হাজার কৃষকের একই দশা।

বগুড়া কৃষি আঞ্চলিক অফিসের তথ্যে জানা গেছে, ২০১৬-১৭ কৃষি মৌসুমে উত্তরের চার জেলা বগুড়া, জয়পুরহাট, পাবনা, সিরাজগঞ্জে আলুর চাষ হয়েছিল এক লাখ ১৪ হাজার ১৬ হেক্টর জমিতে। উৎপাদন হয়েছিল ২৩ লাখ ৫০ হাজার ‍দুই টন। অপরদিকে চলতি মৌসুমে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা আছে ১ লাখ ১০ হাজার ৪১০ হেক্টর জমি। ইতিমধ্যেই চাষ হয়েছে ৪৭ হাজার ৩২৩ হেক্টর জমিতে। আগাম জাতের আলু উত্তোলন হয়েছে ১০০ হেক্টর। উৎপাদন প্রতি হেক্টরে ১৪ টন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ৩ মৌসুমে উত্তরাঞ্চলে আলুর ভালো ফলনের পাশাপাশি বছর জুড়েই ভালো দামও ছিল। মৌসুমের শুরুতে তুলনামূলক কম দামে আলু কিনে পরে বেশি দামে বিক্রি করেছে মজুতদাররা।

ভালো লাভের ধারাবাহিকতায় গেল মৌসুমেও উৎপাদিত আলুর বেশির ভাগ জমা পড়ে হিমাগারে। এতে আগের মৌসুম শেষ হয়ে নতুন মৌসুম শুরুর আগেই সবাই একযোগে বাজারজাত করতে গিয়ে বিপাকে পড়ে যায়। হঠাৎ করেই আলুর দাম তলানিতে পড়ে যায়।

বগুড়ার প্রতিটি উপজেলায় চারদিকে সবুজ ছাতার বেষ্টনীর মতো গড়ে উঠেছে এইসব শিল্প। এর মধ্যে শিবগঞ্জে বেশি। মোকামতলা এ.এইচ. জেড কোল্ডস্টোর, আগমনী কোল্ডস্টোর মহাস্থান, শাহা হিমাদ্রী উথলি বাজার, হিমাদ্রী লিঃ সাদুরিয়া, আফাকু কিচক, হিমাদ্রী শিবগঞ্জ, নিউ কাফেলা শিবগঞ্জ, কাজী কোল্ডস্টোর শোলাগাড়ী, মাহমুদিয়া জামুর হাট, মালটি পারপাস ধনতলা, শাহ সুলতান খয়রা পুকুর, নিউ জনতা বুড়িগঞ্জ- এগুলো সব শিবগঞ্জ উপজেলায়। চলতি মৌসুমে এ শিল্পের কোনোটিই লোকসানের ছোবল থেকে রেহায় পায়নি।

কোল্ডস্টোরের মালিকদের দেয়া তথ্যে জানা গেছে, প্রায় ১০০ কোটি টাকার মতো লোকসান হবে বগুড়ার এই সব কোল্ডস্টোরে। কৃষক ও কৃষির চাহিদা পূরণের জন্য ১৯৯০ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত গড়ে উঠে এই সব শিল্প প্রতিষ্ঠান। এই সব শিল্পের বিনিয়োগও কম নয়। এক একটি শিল্পের পেছনে জমি সহ নির্মাণ ও যন্ত্রাংশ বাবদ ব্যয় হয়েছে ২০ থেকে ২৪ কোটি টাকা। এই মূলধনের ৯০ শতাংশ টাকা কোনো না কোনো ব্যাংক বা বীমা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

Share


Filed in: অর্থ ও বাণিজ্য